আজকের আর্টিকেল টা শুধু মাত্র নতুনদের জন্যে আর যদি আপনি অলরেডি একজন সফল ফ্রিলেন্সার হয়ে থাকেন তবে পোষ্ট টাকে Avoid করার চেষ্টা করুন। কারন আপনার শিখার মতো কিছুই এখানে নেই।  আর যদি বিশেষ কোনো ব্যাক্তির চোখে কোনে বানানে কোনো ভুল থেকে থাকে তবে তা ক্ষমার চোখে দেখবেন। *****আমরা অনেকেই যখন নতুন অবস্থায় এই ফ্রিলেন্সিং শব্দ টার সাথে পরিচিত হয় তখন আমাদের মধ্যে অনেক প্রশ্ন জাগে জিনিষটা কি?  এটা দিয়ে কি করে।?  এইটা করে আদও কি টাকা ইনকাম করা সম্ভব?  এই যে যখন ই আমাদের মধ্যে টাকা ইনকাম করার একটা চিন্তা চলে আসলো তখনই কিন্তু আমরা এই ফ্রিলেন্সিং এর দিকে ঝুকে পরি। আর অবশেষে এই টাকা টাকা টাকা করতে করতে আমাদের আর কাজ শিখাটা হয়ে উঠেনা। অবশেষে আমাদের সফলতার ঘড়টা শূন্য কুঠাতেই রয়ে যায়। তাই আমাদের প্রথমেই উচিৎ এই বিষয়টাকে ভালো ভাবে অনুধাবন করা। এর পর আমাদের এখানে সময় ব্যয় করা। যেন আজকের পরিশ্রম টা আগামী দিনের জন্যে সুখের কারন হয়।*****

১। ***প্রথম  প্রশ্নঃ*** ফ্রিলেন্সিং কী??? —–

অনলাইলে এই প্রশ্নের অনেক উত্তর আছে কিন্তু আমি যদি আমার সংজ্ঞাই বলি, তবে ফ্রিলেন্সিং হলো এমন একটি পেশা যেখানে আপনার নির্দিষ্ট এক বা একাদিক কাজের অবিজ্ঞতা থাকে এবং আপনি যেকোনো জায়গাই বসে ইন্টারনেট সংযোগের মাধ্যমে নির্দিষ্ট পারিশ্রমিক এর বিনিময়ে দেশ ও বিদেশের কাজ করে দিতে পারেন।

২। ফ্রিলেন্সিং ও আউটসোর্সিং এর মধ্যে পার্থক্য কি???—–

এই দুইটা বিষয় সম্পূর্ণ আলাদা। সহজ কথায় ফ্রিলেন্সিং হলো যারা টাকার জন্যে কাজ করে দেয় বা ফ্রিলেন্সার। এবং আউটসোর্সিং হলো যারা টাকা দিয়ে কাজ করিয়ে নেয় অর্থাৎ বায়ার বা ক্লায়েন্ট।

৩। ফ্রিলেন্সিং কেন করবো???—–  

আপনি যদি একজন স্বাধীন চেতা মনের মানুষ হয়ে থাকেন এবং নিজে কিছু করতে চান, নিজের ক্যারিয়ার ডেভেলপ করতে চান তবেই ফ্রিলেন্সিং আপনার জন্যে। আপনার ইচ্ছে হলো আপনি করবেন না হলে করবেন না। এখানে সম্পুর্ন স্বাধীনতা রয়েছে আপনার।

৪। এর জন্যে কি কি লাগবে???—–

এর জন্যে আপনাকে নির্দিষ্ট কিছু কাজে দক্ষ ও প্রফেশনাল হতে হবে। সেটা হতে পারে Web design, Web development, Graphic design, Animation design, Video editing, Seo, Digital marketing, Ui/Ux design, Javascript Developer, Python matchine learning, WordPress theme Development etc etc.  আপনার বাসায় ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে। থাকতে হবে একটা লেপটপ অথবা ডেস্কটপ।

৫। ল্যাপটপ নাকি ডেস্কটপ কিনবো???—–

যদি এমন হয় যে আপনি প্রতিনিয়ত এখান থেকে ওখানে যান অথবা আপনার বাসায় ইলেকট্রিসিটি সমস্যা থাকে অথবা আপনি একটা হালকা পাতলা ডিভাইস চান সেক্ষেত্রে আপনার জন্যে ল্যাপটপ বেষ্ট। অন্যথায় আপনি ডেস্কটপ কিনতে পারেন।

৬। কনফিগারেশন কি হতে হবে???—–

যদি আপনি ওয়েব ডিজাইন শিখতে চান তবে সর্বনিম্ন Core i 3 and 4 gb ram হতে পারে।  তবে সর্বোচ্চ Core i 5 and 8 gb ram is enough.

৭। কেমন টাকা লাগতে পারে ডিভাইস এর জন্যে???—–

যদি আপনি ল্যাপটপ কিনতে চান তবে ৪০-৫০ হাজার যথেষ্ঠ। আর যদি ডেস্কটপ নিতে চান সেক্ষেত্রে ২৫-৩৫ হাজার ই যথেষ্ঠ। অথবা ল্যাপটপ নিতে চাইলে আপনি ভালো একটা পুরনো ল্যাপটপ নিতে পারেন সেক্ষেত্রে টাকা একটু কম লাগবে।

৮। কত দিন সময় লাগবে কাজ শিখতে???—–

যদি কোনো ভালো প্রতিষ্ঠান থেকে কাজ শিখতে পারেন তবে ৬ থেকে ৭ মাসের মধ্যেই আপনি ওয়েব ডিজাইন অথবা ডেভেলপমেন্ট শিখে নিতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনাকে অনেক বেশি টাকা খরচ করতে হতে পারে। ২৫ হাজার থেকে ৩৫ হাজার।  আর অন্যথায় আপনি  You Tube এ কয়েকটা চ্যানেল থেকে শিখার চেষ্টা করতে পারেন। এক্ষেত্রে সময় টা নির্বর করবে আপনার উপরে আপনি কতদিনে শিখতে পারবেন। যদি আপনি সম্পূর্ণ নতুন হয়ে থাকেন তবে Web House চ্যানেল টা Subscribe করে দেখতে পারেন ওয়েব ডিজাইন এর সব কিছুই শিখতে পারবেন। এখানে পার্ট বায় পার্ট ভিডিও দেওয়া হচ্ছে।  যদিও নতুন কিন্তু নতুন থেকে যদি ভালো কিছু হয় তাহলেতো নতুন ই ভালো।

৯। দিনে কতক্ষন প্র্যাকটিস করতে হবে???—–

যদি আপনি SSC থেকে  HSC এর ছাত্র হয়ে থাকেন, তবে ২.৫- ৩.৫ ঘন্টা আপনার জন্যে যথেষ্ঠ। যেন আপনার পড়াশোনার কোনো ক্ষতি না হয়।  আর যদি অনার্স থেকে মাস্টার্স এ থেকে থাকেন তবে ৪-৬ ঘন্টা আপনাকে সময় দিতেই হবে। যত বেশি সময় দিতে পারবেন তত তাড়াতাড়ি শিখতে পারবেন।

১০। কাজ শিখে ইনকাম করতে পারবো তো???—–

যদি আপনি সময় নিয়ে কাজ শিখতে পারেন এবং একজন প্রফেশনাল মানের ডিজাইনার বা ডেভেলপার হতে পারেন তবে কাজ নিয়ে কোনো চিন্তায় করতে হবেনা। তবে একটা কাজ শিখেই বসে থাকতে পারবেন না।  সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে প্রতিনিয়তই আপনাকে নতুন  নতুন  কিছু শিখে যেতেই হবে।

১১। ***সর্বশেষ প্রশ্ন*** কোন কাজ আমার জন্যে ভালো হবে???—– 

বর্তমানে সব থেকে বেশি প্রচলিত হচ্ছে ওয়েব ডিজাইন, ডেভেলপমেন্ট আর গ্রাফিক্স ডিজাইন। আর ডেভেলপমেন্ট এর আওতায় রয়েছে Javascript,  Python, and WordPress theme Development. etc যদি আপনার মধ্যে সৃজনশীল চিন্তা ভাবনা খুব ভালো থেকে থাকে আপনি আর্ট করতে খুব ভালো বাসেন তবেই গ্রাফিক্স ডিজাইন আপনার জন্যে বেষ্ট। অন্যদিকে যদি আপনি চান কী-বোর্ড এর উপরে ঝড় তুলবেন অনেক ভালো টাইপিং করবেন একজন প্রোগ্রামার হবেন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ শিখবেন তবে আপনার জন্যে ওয়েব প্লাটফর্ম বেষ্ট। এখন আপনি কোনটা বেশি ভালো পারবেন সেটাতো আপনিই ভালো বুঝেন।

*****সর্বশেষ আপনাদের কে যেটা বলবো আগেই টাকার চিন্তা না করে কোনো একটা কাজের উপর সময় দিন আগে নিজেকে দক্ষ ও প্রফেশনাল করে গড়ে তুলুন।  এর পর দেখবেন টাকাই আপনার চিন্তা করবে আপনাকে টাকার চিন্তা করতে হবেনা*****

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here