দ্বিতীয় ভাষা শেখা কতটুকু সহজ বা কতটুকু কঠিন তা নির্ভর করে শিক্ষার্থীর মাতৃভাষা কি তার উপর। চাইনিজ, ইন্দোনেশিয়ান বা আরবীয়র পক্ষে তামিল, তেলেগু, ইংরেজী শেখা দারুন কঠিন । খুবই কঠিন।

ইংরেজী ভাষীদের জন্য ফ্রেঞ্চ, স্প্যানিশ, জার্মান, ডাচ, সুইডিশ ভাষা শেখা খুব সহজ। কারন ইংরেজী ভাষা ফ্রেঞ্চ, স্প্যানিশ, জার্মান (মিশ্র ডাচ, সুইডিশ) ভাষা থেকে উৎপত্তি হয়েছে। এদের জন্য খুব কঠিন হিন্দী, আরবী, চাইনিজ, কোরিয়ান, জাপানিজ ভাষা শেখা।

সৌভাগ্যক্রমে বাংলা, হিন্দী, উর্দু ভাষীদের জন্য ইংরেজী শেখা খুব সহজ। এই উপমহাদেশের মানুষের জন্য সবচেয়ে কঠিন হলো মালয়ালাম (কেরালা), চাইনিজ, কোরিয়ান, জাপানিজ ভাষা।

বাংলাদেশী ফ্রিল্যান্সারদের জন্য ইংরেজী অপরিহার্য। বেশির ভাগ ফ্রিল্যাসারের ভাল দখল আছে। আর কিছু লোকের ভাল দখল নেই। চালিয়ে নেয়। ইচ্ছে করলেই ইম্প্রুভ করতে পারেন কিন্তু খুব কম ফ্রিল্যান্সার সময় দিয়ে ইম্প্রুভ করে নেয়।

কেন করে না?
১. সব সময় কাজের চাপে থাকে। এক সময় করে নিবে সেই এক সময় আর আসে না।
২. কাজ তো চলে যাচ্ছে তাই খুব দরকার বলে মনে করে না।
৩. এক ধরণের আলসেমী দায়ী।
৪. শেখার ভয়। না জানি কত কঠিন, কত কষ্ট।
৫. ভয়ে চেষ্টা করে দেখে না এবং চেষ্টা করলেও করে এক দুই দিন। তারপর ধরে নেয়, নাহ, খুব কঠিন। পরে এক সময় করব। সেই সময় আর আসে না।

আমি অবাক Rashed Arman (Facebook friend Age 21) আপনার উচ্চ শিক্ষার সময় হবার আগেই আপনি ৯৯% বিশুদ্ধ ইংরেজী বলতে এবং লিখতে পারেন। আবার একাডেমিক স্টাডি ছাড়াই সব চেয়ে কঠিন ভাষায় প্রোগ্রামিং শিখতেছেন। তবে আপনি ব্যতিক্রম। আপনার সাথে সবাইকে মিলানো সম্ভব নয়। এরপরেও বলতে হয় আপনি যে চেষ্টা আর অধ্যবসায়ের সাথে স্টাডি করেন, তার এক ভাগ করলেই ইংরেজী ভাল ভাবে আয়ত্ত করা যায়, এতে কোন সন্দেহ নেই

How to improve?


প্রধান সমস্যা ইংরেজী বাক্যের গঠন কাঠামো অন্তরে অনুভবে না থাকা। যার ফলে প্রচুর শব্দ সম্ভার থাকা সত্তেও লিখতে পারেন না বা বলতে পারেন না।

দ্বিতীয় সমস্যা হল যে, ইংরেজী লেখা বা পড়া যথেষ্ট ভাল পারলেও বলতে পারেন না। সেই ১২ বছর ইংরেজী স্টাডি করা ইন্টার ছাত্রের মতো। আর ইংরেজী স্যারদের মতো। লিখাতে আর পড়াতে পণ্ডিত। রুলস এ পণ্ডিত। কিন্তু বলার বা শুনার ব্যাপারে একদমই ফেল পণ্ডিত।

শেষ কথা এক মাস সহজ থেকে কঠিন লেখা পড়ে দেখেন। একটা ফিল চলে আসবে।
আর ভুল-ভাল যাচ্ছে তাই বলতে থাকেন। এক মাস পর ধীরে ধীরে আপনা আপনি শুদ্ধ হয়ে যাবে।
তখন বলবেন, কি অবাক ব্যাপার? আমি কেমনে পারতাছি? আংকেল তো ঠিকই বলেছিলেন! অযথা একটা ভয়ের মধ্যে ছিলাম। অযথা কঠিন মনে করতাম।

সাবধান!
অনুবাদ শিখবেন না। অনুবাদ শিখলে ভাষা শেখার সম্ভাবনা সমূলে বিনষ্ট হয়।

রাজিব স্যারের কথা ধরবেন না যে, মেট্রিকের ছাত্র ৬ মাস চেষ্টা করলে ইংরেজী অনার্স পরীক্ষায় পাশ করতে পারবে। কথাটা জামাল স্যারের সেই কথার মতো শুনায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here